দিনাজপুর বার্তা ২৪ | Dinajpur Barta 24

ব্রেকিং নিউজ
নাম পরিবর্তনের পর দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের নাম এখন “এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল ”
মোফাচ্ছিলুল মাজেদ এপ্রিল ১১, ২০১৭, ১০:০৫ অপরাহ্ণ | পড়া হয়েছে ৫৬৬ বার |

দিনাজপুর বার্তা ২৪  : দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এখন “এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ” নামে পরিচিত হবে। স্বাস্থ্য,শিক্ষা পরিবার কল্যাণ বিভাগের ২৯.০৩.২০১৭ তারিখের ৪৫.১৬৮.০০.০০.০৩৩.২০১৩২১০ স্মারক মূলে সরকার দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালকে এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল নামকরণ করে।

 

উল্লেখ্য ১৯৯১ সালে দিনাজপুর সদর আসন থেকে নির্বাচিত সাবেক সংসদ সদস্য, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ঠ সহযোগী, সংবিধান প্রনয়ন কমিটির সদস্য, মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক,বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাবেক কেন্দ্রীয় কমিটির সহ সভাপতি এম আব্দুর রহিম একজন সৎ আদর্শবান রাজনীতিবিদ হিসেবে ছিলেন সর্বজন শ্রদ্ধেয় ব্যক্তিত্ব।

 

এম আব্দুর রহিম ১৯৭১ সালের মহান স্বাধীনতা

সংগ্রামে বৃহত্তর দিনাজপুর অঞ্চলের মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ছিলেন। ১৯৭১ সালে ১৭ এপ্রিল মুজিব নগর সরকার গঠিত হলে যুদ্ধ পরিচালনার জন্য সারা দেশকে ১১টি বেসামরিক জোনে ভাগ করা হয়। মুজিব নগর সরকার এম আব্দুর রহিমকে পশ্চিম জোন এর জোনাল চেয়ারম্যান নিযুক্ত করে।

 

স্বাধীনতার পর যুদ্ববিধ্বস্ত বৃহত্তর দিনাজপুর পুনর্গঠনে তিনি আত্মনিয়োগ করেন এবং ত্রাণ পূনর্বাসন কমিটির চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

 

উল্লেখ্য এম আব্দুর রহিম দশম জাতীয় সংসদের  দিনাজপুর আসন হতে নির্বাচিত সংসদ সদস্য  জাতীয় সংসদের হুইপ  ইকবালুর রহিম এর পিতা।

 

হুইপ  ইকবালুর রহিম  দিনাজপুর বার্তা ২৪ কে বলেন, দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালকে এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল নামকরণ করায় এম আব্দুর রহিম এর সততা নীতি, আদর্শ, দেশাতœবোধ, মানুষের প্রতি অকৃত্রিম ভালবাসা,রাজনৈতিক শিক্ষা প্রভৃতি কাজে নতুন প্রজন্মকে উৎসাহিত করবে।

সরকারের মহতী উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে দিনাজপুরবাসীর পক্ষ থেকে ধন্যবাদ কৃতজ্ঞতা জানান।

এই পাতার আরো খবর -
৩০শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
দিনাজপুর, বাংলাদেশ
ওয়াক্তসময়
সুবহে সাদিকভোর ৪:৪০ পূর্বাহ্ণ
সূর্যোদয়ভোর ৫:৫৭ পূর্বাহ্ণ
যোহরদুপুর ১১:৫৬ পূর্বাহ্ণ
আছরবিকাল ৪:১৪ অপরাহ্ণ
মাগরিবসন্ধ্যা ৫:৫৫ অপরাহ্ণ
এশা রাত ৭:১১ অপরাহ্ণ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদকীয়