দিনাজপুর বার্তা ২৪ | Dinajpur Barta 24

ব্রেকিং নিউজ
করোনা কালীন সময়ে শিশু খাদ্য আজকের বিষয়ঃ শাকসবজী
মোফাচ্ছিলুল মাজেদ জুলাই ১০, ২০২০, ৭:৫৩ অপরাহ্ণ | পড়া হয়েছে ৯৫ বার |
মশিউর রহমান :- 

সুস্থ ও সবলচিত্ত থাকতে শাকসবজি খুব গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে। শাকসবজী বেশি করে খাওয়া সুস্বাস্থ্যের প্রতীক হিসেবে ধরা হয়।

পালংশাকঃ প্রচুর পরিমানে আয়রন থাকায় রক্তস্বল্পতা কমায়।কোষ্ঠকাঠিন্য দুর করে। পালংশাকে প্রচুর ভিটামিন-এ বি সি ই থাকে। তাই চোখ ভাল রাখে ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।

লালশাকঃভিটামিন এ সমৃদ্ধ হওয়ার চোখ ভাল রাখে।রক্তস্বল্পতা দুর করে।

কচু শাকঃ আয়রন ও ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ হওয়ার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় ও রক্তস্বল্পতা কমায়।

টোমেটোঃ প্রবাদ আছে প্রতিদিন একটি করে টমেটো খেলে রোগ বালাই কাছে আসতে পারে না। ভিটামিন-এ থাকায় দৃষ্টি শক্তি ঠিক রাখে।ভিটামিন-সি থাকায় রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। ক্যালসিয়াম দাঁতের জন্য উপরকারী। থায়ামিন হার্টকে ভালো রাখে। আয়রন ও ম্যাংগানিজ আছে। সালাদ,ভর্তা ভাজি ও তরকারি হিসেবে খাওয়ার যায়।

গাজরঃ অত্যান্ত পুষ্টি গুন সমৃদ্ধ একটা খাদ্য।প্রচুর ক্যারোটিন ও ফসফরাস থাকায় মস্তিষ্ক ও হার্ট কে ভালো রাখে। হালুয়া পায়েস চপ ও বড়া হিসাবে খাওয়া যায়।

ফুল কপি ও বাধা কপিঃ মায়ের দুধ বাড়াতে সাহায্য করে। বিটা ক্যারোটিন থাকায় কোলেস্টেরল কমায় ফলে হার্টকে সুস্থ রাখে। এন্টিঅক্সিডেন্ট শরীর থেকে বিষাক্ত টক্সিন দুর করে। বাধা কপি শিশু র রিকেট প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।

আয়োডিন থাকায় গলগণ্ড রোগ প্রতিরোধ এ সাহায্য করে। ফুল কপি মাছের তরকারি, পোকড়া হিসাবে রান্না করে খাওয়া যায়। সিংড়া ফুলরি খুবই সুস্বাদু।

শিমঃশক্তিদায়ক একটা খাবার।শিমের বীচিতে প্রচুর ফাইবার ক্যালসিয়াম,ম্যাগনেসিয়াম থাকে।

করোলাঃডায়াবেটিক রোগীদের মহা ঔষুধ। ক্ষিদা বাড়ায় ও কৃমি নাশক।ভিটামিন-এ সি থাকায় রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় ও চোখ ভাল রাখে।

বেগুনঃ বাচ্চাদের ক্ষিদা বাড়ায়। আয়রন কার্বোহাইড্রেট ফ্যাট ও প্রোটিন আছে।

পটলঃহার্টের শক্তি বাড়ায়। কোলেস্টেরল কমায় ব্লাড সুগার কমাতে সাহায্য করে।

মুলাঃ ভিটামিন-এ বি সি ক্যালসিয়াম ফাইবার ও প্রচুর পানি আছে। রুচি বর্ধক ও কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে সাহায্য করে।

লাউঃ ডালের সাথে রান্না করা যায়। পায়েস হালুয়া ও মোরাব্বা তৈরী করা যায়। এতে আছে ভিটামিন-সি বি আয়রন, চর্বি ও ফ্যাট। কোষ্টকাঠিন্য দুর করে।শরীর ও মস্তিষ্ক ঠান্ডা রাখে।

মিষ্টি কুমড়াঃ প্রচুর ভিটামিন-এ থাকায় রাত কানা দুর করে।স্বাভাবিক বৃদ্ধি ও বিকাশ সাহায্য করে।

ঢেড়সঃ আয়োডিন থাকায় গলগণ্ড রোগ প্রতিরোধ করে। এছাড়াও ভিটামিন-এ ক্যালসিয়াম ও আয়রন আছে।

কাচা কলাঃ এটা রোগীর পথ্য হিসেবে খাওয়া হয়।ডায়রিয়ায় ও আমাশয় ভালো কাজ করে।

আলুঃ এতে আছে ভিটামিন-এ সি,প্রোটিন কার্বোহাইড্রেট ও ক্যালসিয়াম।মাছ গোশত র তরকারী হিসাবে ব্যাবহার করা যায় এছাড়া ভর্তা, কাবাব ও চাটনি হিসাবেও সুস্বাদু।
 মশিউর রহমান
শিশু বিশেষজ্ঞ
রোজমুক্তি ক্লিনিক, গোলকুটি, দিনাজপুর
এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ, দিনাজপুর
এই পাতার আরো খবর -
১২ই আগস্ট, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
দিনাজপুর, বাংলাদেশ
ওয়াক্তসময়
সুবহে সাদিকভোর ৪:১৫ পূর্বাহ্ণ
সূর্যোদয়ভোর ৫:৩৭ পূর্বাহ্ণ
যোহরদুপুর ১২:১০ অপরাহ্ণ
আছরবিকাল ৪:৪৯ অপরাহ্ণ
মাগরিবসন্ধ্যা ৬:৪৩ অপরাহ্ণ
এশা রাত ৮:০৫ অপরাহ্ণ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদকীয়