দিনাজপুর বার্তা ২৪ | Dinajpur Barta 24

ব্রেকিং নিউজ
পঞ্চগড় গরিনাবাড়ি ইউনিয়নের মধ্যে বজরাপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের জেএসসি পরীক্ষার ফলাফল সবার নিচে
মোফাচ্ছিলুল মাজেদ জানুয়ারি ২১, ২০১৮, ৬:২৪ অপরাহ্ণ | পড়া হয়েছে ১,২৬৪ বার |

 

একরামুল মুন্না, পঞ্চগড় প্রতিনিধি: পঞ্চগড় সদর উপজেলার ১০নং গরিনাবাড়ি ইউনিয়নের মধ্যে অবস্থিত ২০১৭ সালে ৪টি স্কুল জেএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে। স্কুলগুলোর ফলাফল হচ্ছে (১নং) ভাটাপুকুরী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় এর পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল ২৬ জন, উত্তীর্ণর সংখ্যা ২৬ জন (১০০%), জিপিএ-৫.০০ প্রাপ্ত ১জন। (২নং) ফুটকিবাড়ি স্কুল ও কলেজের পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল ১১১ জন, উর্ত্তীর্ণের সংখ্যা ১০০ জন (৯০.০৯%), অকৃতকার্য ১১ জন, (৩নং) গরিনাবাড়ি নতুনহাট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় এর পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল ৮৫ জন, উর্ত্তীর্ণের সংখ্যা ৬৯জন (৮১.১৭%) অকৃতকার্য ১৬জন, (৪নং) বজরাপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল ৫৪ জন, উর্ত্তীর্ণের সংখ্যা ৩৬ জন (৬৬.৬৭%), অকৃতকার্য ১৮জন, জিপিএ-৫.০০ প্রাপ্ত ১জন।

বজরাপাড়া এলাকাবাসী ও অভিভাবক এর কাছে প্রশ্ন করলে উনারা বলেন, যেখানে বাংলাদেশ সরকার আমাদের বাচ্চাদের বিনামূল্যে বই, উপবৃত্তি দিচ্ছেন, শিক্ষক ও কর্মচারীদের বেতন ভাতা ইত্যাদি দিচ্ছেন, সরকারের কোনো কমতি নেই। জেএসসি পরীক্ষার ফলাফল খারাপ হওয়ার কারন ম্যানেজিং কমিটি ও শিক্ষকবৃন্দের দুর্বলতা।

বজরাপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক শ্রী ধনেশ চন্দ্র বর্মন কে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন স্কুলের চূড়ান্ত পরীক্ষায় যে সমস্ত পরীক্ষার্থী অকৃতকার্য হয়, অকৃতকার্য পরীক্ষার্থীরা যখন আমার কাছে সভাপতি ও ম্যানেজিং কমিটির সদস্যের সুপারিশকৃত পত্র আমার নিকট নিয়ে আসে তখন আমাকে বাধ্য হয়ে ফরম পূরণ করতে হয়। কখনও কখনও এলাকার বিভিন্ন স্তরের প্রতিনিধির সুপারিশে ফরম পূরণ করতে হয়।

স্কুল সভাপতি মোঃ রাজীব এর সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি বলেন জেএসসি পরীক্ষায় ১০নং গরিনাবাড়ি ইউনিয়নের মধ্যে বজরাপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ফলাফল হচ্ছে সবার শীর্ষে যা ১নং স্থানে রয়েছে। সাংবাদিকদের অন্য কোনো প্রশ্নের উত্তর না দিয়ে ফোনটি কেটে দেন।

পঞ্চগড় জেলা পরিষদ এর সদস্য মোঃ মনোয়ার হোসেন দিপু ও ১০নং গরিনাবাড়ি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ আলতামাস হুসাইন লেলিন সাংবাদিকদের বলেন জেএসসি পরীক্ষার ফলাফল আমরা দেখেছি। অত্র ইউনিয়নের মধ্যে বজরাপাড়া উচ্চ বিদ্যালয় এর পাশের হার তিন ভাগের এক ভাগ অকৃতকার্য, পাশের হার বলে দিচ্ছে শিক্ষক ও ম্যানেজিং কমিটির দুর্বলতা আছে। যদি দুর্বল ছাত্র ছাত্রীদের বিশেষ ক্লাশের মাধ্যমে পড়ানো হতো তাহলে আমাদের মনে হয় এ ধরনের ফলাফল হতো না। এ কথা শুধু আমরা না এলাকার শত শত মানুষকে প্রশ্ন করলে আপনারা একই কথা জানতে পারবেন।

এই পাতার আরো খবর -
৫ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
দিনাজপুর, বাংলাদেশ
ওয়াক্তসময়
সুবহে সাদিকভোর ৪:৪৩ পূর্বাহ্ণ
সূর্যোদয়ভোর ৫:৫৯ পূর্বাহ্ণ
যোহরদুপুর ১১:৫৪ পূর্বাহ্ণ
আছরবিকাল ৪:০৯ অপরাহ্ণ
মাগরিবসন্ধ্যা ৫:৪৮ অপরাহ্ণ
এশা রাত ৭:০৫ অপরাহ্ণ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদকীয়